Type Here to Get Search Results !

Who is the inventor of Finger Print? Qazi Azizul Haque Biography and Invention

Who is the inventor of Finger Print? Qazi Azizul Haque Biography and Inventio. The father of Fringer Print is Bangladeshi scientist Qazi Azizul Haque.


The father of Fringer Print is Bangladeshi scientist Qazi Azizul Haque

Qazi Azizul Haque's family name is Qazi Syed Azizul Haque. He was born in 1872. Born in Pyogram Kasba, Phultala, Khulna District, British India. He was a student of Mathematics at Calcutta Presidency College.

In 1892, he started working at the Writers' Building in Calcutta. At that time, anthropometry (body shape) was used to identify criminals. Azizul Haque, a mathematics student and newly employed as a sub-inspector, worked tirelessly to develop a system known as the 'Henry System' or 'Henry Method'] Azizul Haque was awarded the title of 'Khan Bahadur' as a reward for his work. ', five thousand rupees and a small jagir. Police SP got promoted.

He spent the last days of his life in Champaran (now known as North Champaran, a district of the Indian state of Bihar) in undivided India.[1] He died there in 1935. He is buried within the confines of his own house 'Aziz Manzil', not far from Motihari station in Bihar. After the partition of the country in 1947, other members of his family moved to what was then East Pakistan, now Bangladesh. Asirul Haque, son of late Azizul Haque, became the DSP of the police department. His two famous grandsons and granddaughters are History Professor Salahuddin Ahmed (1922-2014) and Shaheed Jaya Begum Mushtari Shafi (1938-2021) respectively.


Basic research

Colin Bevan, writing about the originality of his research in his book Fingerprints, published in 2001, reports that Azizul Haque encountered terrible difficulties in working with anthropometric methods. As a result, he invented a method of classification of hand prints and fingerprints and started working accordingly. He invented a mathematical formula. Generate 32 tags based on the type of fingerprint. He created one thousand 24 khops in 32 rows of that tree. Vivan also reports that by 1897, Haque had built up a huge collection of 7,000 fingerprints at his workplace. Its simple method makes it easy to classify millions of fingerprints.


Honor

Britain's 'The Fingerprint Society' has launched 'The Fingerprint Society Azizul Haque and Hemchandra Bose Prize' under the initiative of Fancy. The award will be given to those who have made special contributions in the field of forensics.


ফ্রিঙ্গার প্রিন্টের জনক বাংলাদেশী বিজ্ঞানী কাজি আজিজুল হক

কাজি আজিজুল হকের পারিবারিক নাম কাজি সৈয়দ আজিজুল হক। তিনি জন্মেছিলেন ১৮৭২ সালে। ব্রিটিশ ভারতের খুলনা জেলার ফুলতলার পয়োগ্রাম কসবায় জন্মগ্রহণ করেন। তিনি কলকাতা প্রেসিডেন্সি কলেজের গণিতের ছাত্র ছিলেন।

আঙুল ছাপ আবিষ্কার

১৮৯২ সালে তিনি কাজ শুরু করেন কলকাতার রাইটার্স বিল্ডিংয়ে। তখন অ্যানথ্রোপমেট্রি (মানবদেহের আকৃতি) পদ্ধতিতে অপরাধীদের শনাক্ত করার কাজ চলত। গণিতের ছাত্র এবং সদ্য সাব-ইন্সপেক্টর পদে চাকরি পাওয়া আজিজুল হক অক্লান্ত চেষ্টার ফলে তিনি যে পদ্ধতি উদ্ভাবন বা আবিষ্কার করলেন, তা-ই ‘হেনরি সিস্টেম’ বা ‘হেনরি পদ্ধতি’ নামে পরিচিত হলো] কাজের পুরস্কার হিসেবে আজিজুল হককে দেওয়া হয়েছিল ‘খান বাহাদুর উপাধি’, পাঁচ হাজার টাকা এবং ছোটখাটো একটা জায়গির। চাকরিতে পদোন্নতি পেয়ে হয়েছিলেন পুলিশের এসপি।

মৃত্যু

অবিভক্ত ভারতের চম্পারানে (বর্তমানে ভারতের বিহার রাজ্যের একটি জেলা যা উত্তর চম্পারান নামে পরিচিত) কাটে তার জীবনের শেষ দিনগুলো।[১] সেখানেই তিনি ১৯৩৫ সালে মারা যান। বিহারের মতিহারি স্টেশনের অনতিদূরে তার নিজের বাড়ি ‘আজিজ মঞ্জিল’-এর সীমানার মধ্যে তাকে সমাহিত করা হয়। ১৯৪৭ সালের দেশ ভাগের পর তার পরিবারের অন্য সদস্যরা তৎকালীন পূর্ব পাকিস্তান তথা আজকের বাংলাদেশে চলে আসেন। মরহুম আজিজুল হকের পুত্র আসিরুল হক পুলিশ বিভাগের ডিএসপি হয়েছিলেন। তার দুই বিখ্যাত নাতি ও নাতনি হচ্ছেন যথাক্রমে ইতিহাসের অধ্যাপক সালাহউদ্দিন আহমেদ (১৯২২-২০১৪) এবং শহীদ জায়া বেগম মুশতারী শফী (১৯৩৮-২০২১)।

মৌলিক গবেষণা

২০০১ সালে প্রকাশিত কলিন বিভান তার ফিঙ্গারপ্রিন্টস গ্রন্থে তার গবেষণার মৌলিকত্ব সম্পর্কে লিখতে গিয়ে জানাচ্ছেন, অ্যানথ্রোপমেট্রিক পদ্ধতি নিয়ে কাজ করতে গিয়ে আজিজুল হক ভয়ানক অসুবিধার সম্মুখীন হন। ফলে নিজেই হাতের ছাপ তথা ফিঙ্গারপ্রিন্টের শ্রেণীবিন্যাসকরণের একটা পদ্ধতি উদ্ভাবন করে সে অনুযায়ী কাজ করতে থাকেন। তিনি উদ্ভাবন করেন একটা গাণিতিক ফর্মুলা। ফিঙ্গারপ্রিন্ট বা আঙুলের ছাপের ধরনের ওপর ভিত্তি করে ৩২টি থাক বানান। সেই থাকের ৩২টি সারিতে সৃষ্টি করেন এক হাজার ২৪টি খোপ। বিভান আরও জানাচ্ছেন, ১৮৯৭ সাল নাগাদ হক তার কর্মস্থলে সাত হাজার ফিঙ্গারপ্রিন্টের বিশাল এক সংগ্রহ গড়ে তোলেন। তার সহজ-সরল এই পদ্ধতি ফিঙ্গারপ্রিন্টের সংখ্যায় তা লাখ লাখ হলেও শ্রেণীবিন্যাস এর কাজ সহজ করে দেয়।

সম্মাননা

ব্রিটেনের ‘দ্য ফিঙ্গারপ্রিন্ট সোসাইটি’ ফেন্সির উদ্যোগে চালু করেছে ‘দ্য ফিঙ্গারপ্রিন্ট সোসাইটি আজিজুল হক অ্যান্ড হেমচন্দ্র বোস প্রাইজ’। যাঁরা ফরেনসিক সংশ্লিষ্ট ক্ষেত্রে সবিশেষ অবদান রাখবেন, এ পুরস্কার দেওয়া হবে তাদেরই।


Post a Comment

0 Comments
* Please Don't Spam Here. All the Comments are Reviewed by Admin.